দুই বিঘা জমি লিরিক্স – রবিন্দ্রনাথ ঠাকুর | Dui Bigha Jomi Bangla Kobita | Rabindranath Tagore

দুই বিঘা জমি লিরিক্স - রবিন্দ্রনাথ ঠাকুর
Dui Bigha Jomi
Dui Bigha Jomi Bengali Poem is written by Rabindranath Tagore. Hindi Movie “Do Bigha Zamin” is based on this poem.
Rabindranath Tagore wrote the poem about the class division of the rural society of Bengal and the injustice of the strong over the weak. 

Dui Bigha Jomi Lyrics In Bengali (দুই বিঘা জমি)

শুধু বিঘে দুই ছিল মোর ভুঁই   আর সবই গেছে ঋণে।
বাবু বলিলেন, “বুঝেছ উপেন,   এ জমি লইব কিনে।’
কহিলাম আমি, “তুমি ভূস্বামী,   ভূমির অন্ত নাই।
চেয়ে দেখো মোর আছে বড়ো-জোর   মরিবার মতো ঠাঁই।’
শুনি রাজা কহে, “বাপু, জানো তো হে, করেছি বাগানখান
পেলে দুই বিঘে প্রস্থে ও দিঘে   সমান হইবে টানা–
ওটা দিতে হবে।’ কহিলাম তবে   বক্ষে জুড়িয়া পাণি
সজল চক্ষে, “করুণ বক্ষে   গরিবের ভিটেখানি।
সপ্ত পুরুষ যেথায় মানুষ   সে মাটি সোনার বাড়া,
দৈন্যের দায়ে বেচিব সে মায়ে   এমনি লক্ষ্মীছাড়া!’
আঁখি করি লাল রাজা ক্ষণকাল   রহিল মৌনভাবে,
কহিলেন শেষে ক্রূর হাসি হেসে,  “আচ্ছা, সে দেখা যাবে।’
পরে মাস দেড়ে ভিটে মাটি ছেড়ে   বাহির হইনু পথে–
করিল ডিক্রি, সকলই বিক্রি   মিথ্যা দেনার খতে।
এ জগতে, হায়, সেই বেশি চায়   আছে যার ভূরি ভূরি–
রাজার হস্ত করে সমস্ত   কাঙালের ধন চুরি।
মনে ভাবিলাম মোরে ভগবান   রাখিবে না মোহগর্তে,
তাই লিখি দিল বিশ্বনিখিল   দু বিঘার পরিবর্তে।
সন্ন্যাসীবেশে ফিরি দেশে দেশে   হইয়া সাধুর শিষ্য
কত হেরিলাম মনোহর ধাম, কত মনোরম দৃশ্য!
ভূধরে সাগরে বিজনে নগরে   যখন যেখানে ভ্রমি
তবু নিশিদিনে ভুলিতে পারি নে   সেই দুই বিঘা জমি।
হাটে মাঠে বাটে এই মতো কাটে   বছর পনেরো-ষোলো–
একদিন শেষে ফিরিবারে দেশে   বড়ই বাসনা হল।
নমোনমো নম সুন্দরী মম   জননী বঙ্গভূমি!
গঙ্গার তীর স্নিগ্ধ সমীর,   জীবন জুড়ালে তুমি।
অবারিত মাঠ, গগনললাট  চুমে তব পদধূলি,
ছায়াসুনিবিড় শান্তির নীড়   ছোটো ছোটো গ্রামগুলি।
পল্লবঘন আম্রকানন   রাখালের খেলাগেহ,
স্তব্ধ অতল দিঘি কালোজল–  নিশীথশীতল স্নেহ।
বুকভরা মধু বঙ্গের বধূ   জল লয়ে যায় ঘরে–
মা বলিতে প্রাণ করে আনচান,   চোখে আসে জল ভরে।
দুই দিন পরে দ্বিতীয় প্রহরে   প্রবেশিনু নিজগ্রামে–
কুমোরের বাড়ি দক্ষিণে ছাড়ি   রথতলা করি বামে,
রাখি হাটখোলা, নন্দীর গোলা, মন্দির করি পাছে
তৃষাতুর শেষে পঁহুছিনু এসে   আমার বাড়ির কাছে।
ধিক্‌ ধিক্‌ ওরে, শতধিক্‌ তোরে,   নিলাজ কুলটা ভূমি!
যখনি যাহার তখনি তাহার,   এই কি জননী তুমি!
সে কি মনে হবে একদিন যবে   ছিলে দরিদ্রমাতা
আঁচল ভরিয়া রাখিতে ধরিয়া   ফল ফুল শাক পাতা!
আজ কোন্‌ রীতে কারে ভুলাইতে   ধরেছ বিলাসবেশ–
পাঁচরঙা পাতা অঞ্চলে গাঁথা, পুষ্পে খচিত কেশ!
আমি তোর লাগি ফিরেছি বিবাগি   গৃহহারা সুখহীন–
তুই হেথা বসি ওরে রাক্ষসী,   হাসিয়া কাটাস দিন!
ধনীর আদরে গরব না ধরে !   এতই হয়েছ ভিন্ন
কোনোখানে লেশ নাহি অবশেষ   সেদিনের কোনো চিহ্ন!
কল্যাণময়ী ছিলে তুমি অয়ি,   ক্ষুধাহরা সুধারাশি!
যত হাসো আজ যত করো সাজ   ছিলে দেবী, হলে দাসী।
বিদীর্ণ হিয়া ফিরিয়া ফিরিয়া   চারি দিকে চেয়ে দেখি–
প্রাচীরের কাছে এখনো যে আছে,   সেই আমগাছ একি!
বসি তার তলে নয়নের জলে   শান্ত হইল ব্যথা,
একে একে মনে উদিল স্মরণে   বালক-কালের কথা।
সেই মনে পড়ে জ্যৈষ্ঠের ঝড়ে  রাত্রে নাহিকো ঘুম,
অতি ভোরে উঠি তাড়াতাড়ি ছুটি   আম কুড়াবার ধুম।
সেই সুমধুর স্তব্ধ দুপুর,   পাঠশালা-পলায়ন–
ভাবিলাম হায় আর কি কোথায়   ফিরে পাব সে জীবন!
সহসা বাতাস ফেলি গেল শ্বাস   শাখা দুলাইয়া গাছে,
দুটি পাকা ফল লভিল ভূতল   আমার কোলের কাছে।
ভাবিলাম মনে বুঝি এতখনে   আমারে চিনিল মাতা,
স্নেহের সে দানে বহু সম্মানে   বারেক ঠেকানু মাথা।
হেনকালে হায় যমদূত-প্রায়  কোথা হতে এল মালী,
ঝুঁটি-বাঁধা উড়ে সপ্তম সুরে   পাড়িতে লাগিল গালি।
কহিলাম তবে, “আমি তো নীরবে   দিয়েছি আমার সব–
দুটি ফল তার করি অধিকার,   এত তারি কলরব!’
চিনিল না মোরে, নিয়ে গেল ধরে  কাঁধে তুলি লাঠিগাছ–
বাবু ছিপ হাতে পারিষদ-সাথে   ধরিতেছিলেন মাছ।
শুনি বিবরণ ক্রোধে তিনি কন,   “মারিয়া করিব খুন!’
বাবু যত বলে পারিষদ-দলে   বলে তার শতগুণ।
আমি কহিলাম, “শুধু দুটি আম  ভিখ মাগি মহাশয়!’
বাবু কহে হেসে, “বেটা সাধুবেশে   পাকা চোর অতিশয়।’
আমি শুনে হাসি আঁখিজলে ভাসি,   এই ছিল মোর ঘটে–
তুমি মহারাজ সাধু হলে আজ,   আমি আজ চোর বটে!

Dui Bigha Jomi Bengali Poem In English Translation

Of my land only a little remained, the rest having been mortgaged away.
The zamidar said one day, “Know what Upen? This too should come my way”.
I said, “O Lord, countless are the plots of land you already own,
But consider–I only have land enough to bury me when I’m gone!’
The zamindar brushed me aside saying, “Upen, I’m building a garden,
Your half-acre will allow me to design for it a lovely fountain–
You’ll have to sell it to me!”  …. I replied, tears in my eyes,
and hands on my heart, “Spare this poor man’s land, or else he dies!
For seven generations we’ve tilled this plot and it’s everything to me,
Selling it will be like selling my mother because of poverty!”
The zamindar reddened, kept mum for a bit, and then gave a peculiar smile
In a forbidding manner, he muttered under his breath, “we’ll see in a while!’


In six weeks I was forced out of my ancestral land and into the road
By a court decree. Falsely, it said I had defaulted on a loan and owed
The zamindar the whole lot! Alas, in this world those who have most want all
Even the king won’t stop until he has grabbed everything–big or small!
I consoled myself: God has decided not to confine me to this small plot of land;
Perhaps I am fated to roam far and wide and end up in some distant strand.
And so I became a mendicant’s assistant and followed him everywhere
Visiting shrines that were memorable and seeing sights that were fair.
But no matter whether I climbed high peaks or reached a remote river bend
The thing I could never forget night or day was my little plot of land!
And so I traversed country fairs, fields, and roads for fifteen years or so
Until homesickness made me feel to my country once more I must go.


I thought as I went: motherland Bengal–I bow to you lovingly!
Your exquisite riverbanks and gentle winds will surely revive me.
I’ll thrill at skies kissing dust swirling up from wide open fields,
I’ll seek in the sylvan shade of a tiny village an abode of perfect bliss.
Bengal’s shaded ponds will be calm and comforting to see
And surely I’ll delight at sweet village belles carrying water home daily.
Such thoughts of my motherland made me sad and tears welled up in me.
Two days later–at noon– I entered my village– oh so eagerly!
Past the potter’s shop and left of the field where festivals are held I sped
Leaving the fairground–site of all delight– and the temple ground,
I hurried to my homestead–thirsty, eager and completely exhausted!


Shame, shame, oh shame on you, my shameless little plot of land!
How is it that you yielded so easily to the seducer’s blandishment?
Don’t you remember how you once nurtured me with what little you had?
How you provided me with fruits, flowers and produce from your bed?
Who are you trying to seduce now in fancy and dazzling dresses?
Why deck yourself in alluring colors and flower-studded tresses?
It was for you I came back worn out by years of wandering
But you, wanton, are only bent on being coy and enchanting!
Riches enticed you and the landlord’s wealth made all the difference
Nothing remained of what you once were — a maiden in essence!
So bountiful and giving once, so caring, sweet and pleasant,
Seduce him all you can– once a goddess, now you’re a mere servant!


With a grieving heart I looked around and what then did I see?
Still erect where it always stood was my favorite mango tree!
I sat down and wept till tears doused the pain that was in me
One by one, images of childhood resurfaced in my memory.
How after summer storms I wouldn’t sleep at all,
Knowing I had to gather by dawn the mangoes sure to fall
I thought of still fun-filled afternoons when we played hooky
And I felt: what a pity that such days I will never again see!


Suddenly a gusting wind shook the branches of the tree
and two ripe mangoes fell on the spot where I happened to be.
Surely, I thought, my mother has finally seen her long lost son,
I picked up the mangoes she lovingly gave me on this occasion.
 

Suddenly, as if an angel of death, an Oriya gardener was in the scene
Hair in knot, this man swore and threatened in a way that was obscene.
I told him, “I gave up all years ago without protesting the court decree
Why fuss if I pick up two mangoes from what was my property?”
Unimpressed, the gardener seized me, directing his stick at my head.
Dragging me to his landlord, he complained to him about what I said.
The zamidar, egged on by his cronies, thundered, “You’re as good as dead!”
But his abuse was nothing compared to what his cronies had to say.
All I could say in defense was, “my lord, those mangoes fell my way.”
The zamindar said, “This scoundrel acts innocent but is a big thief!”
With tears in my eyes I laughed at being made the source of all mischief.
I laughed at my fate and at all those years I spent in grief
Indeed, he is the saint now and I am the thief!

Share This:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close