রেললাইন – Bangla Bhuter Golpo 2021 (সেরা বাংলা ভূতের গল্প)

রেললাইন Bangla Bhuter Golpo 2021 (সেরা বাংলা ভূতের গল্প)

রেললাইন - Bangla Bhuter Golpo 2021 (সেরা বাংলা ভূতের গল্প)
Bangla Bhuter Golpo (2021)
ঘটনাটা বেশ কয়েকদিন আগের। ঢাকার ভেতরে একটা রেলষ্টেশন ধরে হাটছিলাম। প্রচন্ড গরমের একটা রাত। মন বিক্ষিপ্ত হওয়ার কারনে আনমনে হাটছিলাম। মাথায় নানাবিধ চিন্তাঘুরপাক খাচ্ছিল। ঘড়িতে তখনপ্রায় রাত সাড়ে ১০ঃ৩০টা বাজে। ঢাকা মত জনবহুল শহরের জন্য খুব বেশী গভীর রাত নয়। হাটতে হাটতে একসময় খুব ক্লান্ত হয়ে পরলাম তাই রেল লাইন যেখানে বাক নিয়েছে সেখানে একটা বাজার, ওখানটাতেই একটু বসলাম।


ঢাকা শহরে সাধারনত রেল লাইনের পাশেই বাজার হয়। কিন্তু এখানে দেখলাম সম্পূর্ণ রেললাইনটা জুড়েই বাজার। বলতে গেলে লাইনের দুই পাশ ঘিরেই বাজার বসেছে। অনেক মানুষ দেখে, এগিয়ে গেলাম। বেশ কিছু চায়ের দোকান রয়েছে। প্রায় সগুলোই মানুষের ভীড়ে ঠাসাঠাসি। ক্লান্তির মধ্যে নিজেকে একটু আড়ালে রাখার জন্য মোটামুটি ফাকা একটা দোকানে বসলাম। দোকানি-কে চা দিতে বলে আশেপাশে তাকালাম। নানা ধরনের মানুষ। কথা বলছে, ঝগড়াকরছে, সাধারনত বাজারে যা হয়ে থাকে।

নতুন বাংলা ভূতের গল্প


দোকানদার চা দিল। উঠে গিয়ে চা হাতে নিয়ে বসলাম। চা খাচ্ছি, বসে বসে মোবাইল নিয়ে নড়াচড়া করছি। হঠাৎ খেয়াল করলাম, আমি যে দোকানটাতে বসে আছি সেখানে একটু করে মানুষের ভীড় বাড়ছে। অনান্য দোকানের সামনে যারা বসা ছিল প্রায় অনেকেই উঠে এসে আমার আশেপাশে দাড়িয়ে চা খেতে লাগল। খেয়াল করলাম প্রায় সকলের পরনেই লুঙ্গি। যদিও অবাক হওয়ার মত কিছু নেই, তবুও মনে হল সবাই ইচ্ছে করেই একই ধরনের পোষাক পরেছে। ফালতু চিন্তা করছি ভেবে উঠে দাড়ালাম।


জিজ্ঞেস করলাম কত টাকা হয়েছে বিল। মনে হল এই কথা জিজ্ঞাসা করায় সবাই আমার দিকে তাকাল, কিন্তু ঠিক সরাসরিনয় আড়চোখে। অস্বস্তি লাগছিল। টাকা বের করতে পকেটে হাত ঢোকালাম। দোকানদারকে আবার জিজ্ঞেস করতেই সে বলল টাকা লাগবে না। আমি রেগে গেলাম। আমি বললাম লাগবেনা কেন? আমিতো বিশেষ কেউ নই যে আমার টাকা লাগবেনা। মানিব্যাগ বের করব এমন সময় লক্ষ্য করলাম দোকানদার আমার চোখের দিকে সরাসরি তাকিয়ে আছে। সবচেয়ে বড় ধাক্কা খেলাম যখন বুঝলাম চেষ্টা থাকা সত্বেও আমি মানিব্যাগ বের করতে পারছিনা।

Bengali Horror Story


আমার ভয় লাগতে শুরু হল। দোকানদার আমার দিকে তাকিয়ে বিদ্রুপের হাসি হাসল। আমি আর মানিব্যাগ বার করার চেষ্টা করলাম না। ভাবলাম কোন কারনে হয়তো আমি নিজের উপর দূর্বল হয়ে পড়েছি। এক সময় মানিব্যাগ বের করতে পারলাম, ২০ টাকার একটা নোট বিস্কুটের টিনের কৌটো গুলোর উপরে রাখলাম তারপর দ্রুততার সঙ্গে দোকান থেকে বের হয়ে গেলাম। রেল লাইন পার হয়ে অল্প কিছু দূর এসেছি। হঠাৎ কি যেন মনে হতেই ফেলে আসা বাজারের দিকে পেছন ফিরে তাকালাম। ওই দোকানটাতে আগের মতই ভীড় রয়েছে।


দোকানটার দিকে তাকিয়ে অবাক হয়ে গেলাম দেখলাম যে দোকানের লোকগুলো আমার দিকেই তাকিয়ে আছে, বিশেষ করে দোকানদারটা। সে দোকান থেকে লাইনে নেমে আমার পথেরদিকে তাকিয়ে আছে। ভয় পেয়েগেলাম, প্রচন্ড ভয়। ইচ্ছে হচ্ছিল দৌরে পালিয়ে যাই। কিন্তু কেন জানিনা দৌড় দিলাম না। জোরে জোরে পা ফেলতে লাগলাম। অল্প একটু এগিয়েছি, সামনে একটা রিক্সা। রিক্সাটাকে দেখে একটা শান্তির অনুভুতি এলো। হুড়মুড়করে রিক্সায়উঠে বসলাম।

Bangla Bhooter Golpo 2021


গন্তব্য স্থানের নাম বলতেই রিক্সা যেন হাওয়ার সাথে পাল্লা নিয়ে ছুটতে লাগলো। ইচ্ছে হল রিক্সাওয়ালা-কে একটা ধমক, এত জোরে চালানোর জন্য। তবে অখান থেকে বেড়িয়ে আসতে পেরে ভালোই লাগছিলো, তাই আর কিছু বললাম না। এমন মনে হচ্ছিল যে আমার পেছনে অশুভ কিছু একটা ধাওয়া করছে আর তার সাথে পাল্লা দিয়ে এগোচ্ছে রিক্সা। বেশ কিছুক্ষন যাওয়ার পর একটা শান্তি অনুভব করলাম। ঘুম ঘুম পাচ্ছিল। ঘড়িতে তখন প্রায় ১২টার বেশী বাজে।


আমি যেখানে নামব সেখানে পৌছানোর জন্য রিক্সাওয়াকে পথ বলে দিতে হচ্ছিল। কিন্তু রিক্সাওয়ালা যেন সব চেনে, আমাকে একদম জায়গায় পৌছে দিল। আমার কাছে রিক্সা ভাড়া কিছু টাকা কম ছিল। তাছাড়া এত রাতে যে কোনো রিক্সা পাওয়া যেতো। সেটাকেই ভাগ্যের ব্যাপার মনে করে রিক্সাওয়ালাকে কিছু টাকা বেশি দিতে ইচ্ছে হল। রিক্সা থেকে নেমে রিক্সাওয়ালাকে বললাম আপনি এখানে একটু দাড়ান, আমি টাকা নিয়ে আসছি।

New Bangla Bhuter Golpo


সারা পথে রিক্সাওয়ালার চেহারা দেখিনি এখন দেখলাম। মনে হল আগেও কোথাও যেন দেখেছি। কোথায় দেখেছি চিন্তা করতে করতে আমি টাকা নিয়ে বেড় হলাম। দরজা খুলে বের হব, এক মুহূর্ত থেমে গেলাম। মনে পড়ল বাজারের দোকানদার এই লোকটাই। সাথে সাথে ঝড়ের বেগে দরজা খুলে বের হলাম, কেউ নেই ওখানে। আমার হাত-পা পুরো জমে ঠান্ডা হয়ে পড়ছিল। পরের দিন দুপুরে আমি আর একজনকে সাথে নিয়ে ওই রেললাইনে গেলাম। কিন্তু অনেক খোজাখুজি করেও ওই লাইনের বাকে যে মোড় বা বাজার কিছুই খুজে পেলাম না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

close