৫টি হজম শক্তি বৃদ্ধির উপায় | Increase Digestion Speed

5 Ways To Increase Digestion Speed | হজম শক্তি বাড়ানোর উপায়


রোজকার জীবনে আমাদের ঠিক মতো শরীর চর্চা করা হয়না বা করার সময় হয় না। আর এই ব্যস্ত জীবনের মধ্যে খাওয়ার কোনো নির্দিষ্ট সময় থাকেনা। আর যারা বাইরে কাজে থাকে তাদের তো প্রায়ই বাইরের খাবার খেতে হয়। আর কম বেশি আমরা সবাই জানি বাইরের খাবার খেতে ভালো হলেও তা কতটা পরিমাণে আমাদের শরিরের ক্ষতি করে। আর যার ফলে শরীরে নানা রকম সমস্যার সৃষ্টি হয় তার মধ্যে অন্যতম সমস্যা হলো যা প্রায় এখন প্রত্যেকের মধ্যেই কম বেশি দেখা যায় তা হল Digestion Speed Decrease হয়ে যাওয়া বা হজম শক্তি কমে যাওয়া।
 
আর এর ফলে পেটে ও বুকে প্রচন্দ ব্যাথার সৃষ্টি হয় যার কারণে সারাদিনের কাজ কর্মে নানা ব্যাঘাত ঘটে। এই সব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে আপনাদের জন্য আজকে নিয়ে এসেছি হজম শক্তি বৃদ্ধির উপায় 5 Ways To Increase Digestion Speed যে গুলো যদি আপনি মেনে চলেন আপনার পেটের কোনো সমস্যা থাকবে না।

হজম শক্তি বৃদ্ধির উপায় (Increase Digestion Speed)

হজম শক্তি বাড়ানোর উপায় জানার আগে আমাদের জেনে নেওয়া উচিত খাবার হজম প্রক্রিয়া কী বা কীভাবে কাজ করে।

হজম প্রক্রিয়া (Digestion System In Bengali)

হজম প্রক্রিয়া হল কীভাবে আমাদের দেহ আমাদের খাওয়া খাবারকে পুষ্টিতে পরিণত করে যা আমাদের শরীরে শক্তি, বৃদ্ধি এবং কোষ মেরামতের জন্য ব্যবহার হয়। হজম পদ্ধতিতে লালা গ্রন্থি, মুখ, খাদ্যনালী, পেট, লিভার, পিত্তথলি, অগ্ন্যাশয়, ছোট অন্ত্র, কোলন এবং মলদ্বার অন্তর্ভুক্ত থাকে।

1. জোর করে বেশি খাবার না খাওয়া

হজম শক্তি কমে যাওয়ার কারণ আপনার খাবার খাওয়ার ধরণের মধ্যেই লুকিয়ে আছে। যখন আপনি অত্যধিক পরিশ্রম করেন আপনার শরীর এবং পাচনতন্ত্র বিশ্রাম করতে যায়। তখন খাবারটি সঠিকভাবে ভেঙে পড়াও কঠিন হয়ে পড়ে। এর ফলে বদহজম, অস্বস্তি এবং এসিডিটির সমস্যা দেখা দেয়। হজম প্রক্রিয়া উন্নত করতে মূল যা দরকার তা হল পরিমিত ভাবে খাওয়া এবং পেত ভরতি করে না খাওয়া। খাবারের হজমে সহায়তা করার জন্য পেটে কিছু খালি জায়গা রেখে দেওয়ার দরকার। খাবারের একটি রুটিন বানিয়ে নিয়মিত পরিমাণ হিসেবে খাওয়ার জন্য ডাক্তারেরাও পরামর্শ দেয়।

2. বেশি করে জল খাওয়া

জল খাবার হজমের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। খাওয়ার সময় খাবারের চেয়ে বেশি জল খাওয়ার চেষ্টা করুন কারণ এটা পাকস্থলীর অ্যাসিডকে হ্রাস করতে সাহায্য করে এবং হজমের সমস্ত তরলগুলির সাথে মিশে যেতে পারে।

3. ধ্যান করা

সারাদিনের মধ্যে কিছুটা সময় নিজের জন্য বের করে একা বসে থাকা বা নিজেকে সময় দেওয়া আপনার শরীর ও মানসিক শান্তির জন্য ভালো। দৈনিক ধ্যান করা আপনার শরীরকে পসিটিভ পদ্ধতিতে প্রভাবিত করতে এবং হজম শক্তি উন্নতিতে সহায়তা করে। এটি দেহের হোমোস্টেসিস ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে যা পরিপাকতন্ত্রকে আরও ভালো করতে সহায়তা করে। রোজ সকাল ও সন্ধ্যায় 20 থেকে 30 মিনিট ধ্যান, আপনার শরীরের বৃদ্ধির গতিকে নিয়ন্ত্রিত রাখে।

4. শরীরচর্চা

ব্যায়াম শুধু যে আমাদের শরীরের পক্ষে ভালো তা নয় ব্যায়াম আমাদের খাবার হজম করার প্রক্রিয়াকে ভালো রাখে। আমাদের পরিপাকতন্ত্রের মাধ্যমে খাদ্য স্থানান্তর করতে পেটের চারপাশে স্বাস্থ্যকর পেশীর স্তর লাগে। ব্যায়াম আপনার খাদ্য হজমের প্রক্রিয়া আরও উন্নত করে তোলে যার ফলে আপনি যদি আপনার খাবারের রুটিন মেনে না চলতে পারেন তাও তেমন একটা অসুবিধা হয়না।

5. বদ অভ্যাস ত্যাগ করুন

অস্বাস্থ্যকর জীবনধারা বদহজম বা হম শক্তি কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ। উদাহরণস্বরূপ, ধুম’পান, দেরি করে ঘুম থেকে ওঠা, রাতে দেরি করে ঘুমোতে যাওয়া, দিনে বেশির ভাগ সময় শুয়ে বা বসে কাটানো। আপনি যদি কোনরকম হজম সমস্যায় ভুগছেন তবে ধূম’পান ত্যাগ করা আপনার পক্ষে উপকারী হতে পারে। সারাদিনের বদ অভ্যাস গুলো থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। পারলে ব্যায়াম করুন, বাইরে ঘুরতে যান এতে আপনার শরীর ও মানসিক ভারসাম্য দুটোই ভালো থাকবে।

Final Words

শরীরটা তো আপনার তাই এটার যত্ন নেওয়ারও দায়িত্ব আপনার এখন থেকেই শরীর চর্চা শুরু করুন। আর ওপরে যেই পয়েন্ট গুলো বলা হয়েছে সেগুলো যদি আপনি আপনার জীবনে মেনে চলতে পারেন আপনার কখনও কোনরকম পেটের সমস্যায় ভুগতে হবেনা।
 
পোষ্টটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে আপনার কাছের মানুষদের সাথেও পোস্টটি শেয়ার করুন তারাও যাতে হজম শক্তি বৃদ্ধির উপায় গুলো জানতে পারে।
Share This:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close