সুকুমার রায় জীবনী | Sukumar Ray Biography In Bengali [PDF Download]

সুকুমার রায় জীবনী, প্রিয় কবি সুকুমার রায়, স্কুল প্রজেক্ট, কবিতা, আবোল তাবোল, গল্প, উপন্যাস (Sukumar Ray Biography In Bengali, Sukumar Ray School Project In Bengali) [Sukumar Ray Wiki 2021, Famous Poems, Family Tree, Autobiography In Bengali)

সুকুমার রায় জীবনী

সুকুমার রায় ১৮৮৭ সালের ৩০ অক্টোবর কলকাতার প্রসিদ্ধ রায়চৌধুরী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী ছিলেন শিশু সাহিত্যের একজন জনপ্রিয় লেখক, একজন সঙ্গীতশিল্পী, মুদ্রণ প্রযুক্তির পথিকৃৎ এবং ইউ রে এবং সন্স নামক একটি ছাপাখানার প্রতিষ্ঠাতা। ব্রহ্ম সমাজের আলোকিত পরিবেশে সুকুমার বেড়ে ওঠেন। পরিবারের প্রশ্নবোধক মনোভাব সুকুমারের মধ্যেও বিদ্যমান, যাদের পারিবারিক বন্ধুদের মধ্যে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় এবং স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু।

Sukumar Ray Biography In Bengali

নামসুকুমার রায়
জন্ম তারিখ30 October 1887
জন্মস্থানময়মনসিংহ, বাংলাদেশ
পিতাউপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী
মাতাবিধুমুখী দেবী
সন্তানসত্যজিৎ রায়
পেশাকবি, লেখক
মৃত্যু তারিখ10 September 1923
মৃত্যুর কারণলেইশম্যানিয়াসিস রোগ, জ্বর
মৃত্যুর স্থানকলকাতা, ভারত

সুকুমার রায় শিক্ষা ও ব্যাক্তিগত জীবন

সুকুমার রায় ১৯০৬ সালে প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে পদার্থবিজ্ঞান ও রসায়নে অনার্স নিয়ে স্নাতক হন। নানাভাবে সুকুমার তাঁর বাবার কাজ অনুসরণ করতো। ১৯১১ সালে তিনি মুদ্রণ প্রযুক্তি অধ্যয়নের জন্য ইংল্যান্ডে যান। তিনি প্রথমে লন্ডনে এবং পরে ম্যানচেস্টারে ব্যতিক্রমী মানের প্রযুক্তিগত কাজ করেছেন, সেখানে থাকাকালীন নামকরা পত্রিকায় অনেক গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন।

সুকুমারের ফটোগ্রাফির প্রতি গুরুতর আগ্রহও গড়ে উঠেছিল। কিশোর সময়েই তিনি মেধা পুরস্কারে ভূষিত হন এবং ১৯২২ সালে তিনি রয়েল ফটোগ্রাফিক সোসাইটির সহকর্মী পদে দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ফটোগ্রাফির উপর বেশ কয়েকটি নিবন্ধও প্রকাশ করেছিলেন।

১৯১২ সালে তিনি যখন লন্ডনে ছিলেন তখন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও লন্ডন পরিদর্শন করেছিলেন এবং ১৯১৩ সালে তাঁরা একসঙ্গেই ভারতে ফিরে আসেন। একই বছর উপেন্দ্রকিশোর সন্দেশ নামে একটি শিশু পত্রিকা শুরু করেন, যা বাংলায় শিশুসাহিত্যের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণিত হয়।

সন্দেশ পত্রিকা ও রায় পরিবার

১৯১৫ সালে উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরীর মৃত্যুর পর সুকুমার রায় সন্দেশের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরে ১৯৬০-এর দশকে সুকুমার রায়ের পুত্র এবং বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায় সন্দেশকে পুনরুজ্জীবিত করে তোলেন এবং এই প্রক্রিয়ায় শিশু সাহিত্যের আরেকটি জনপ্রিয় লেখক হিসেবে উঠে আসেন সত্যজিৎ রায়।

জনপ্রিয় লেখক সুকুমার রায়

সুকুমার রায় যদি আবোল তাবলের ৪৫টি ছড়া ব্যতীত অন্য কিছু লিখতেন, তাহলেও তিনি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে যে কোনো লেখকের মতোই জনপ্রিয় ছিলেন। এমনকি আবোল তাবোলের প্রথম প্রকাশের প্রায় আশি বছর পরেও, এমন একজন শিক্ষিত বাঙালি খুঁজে পাওয়া বিরল হবে, যিনি এই কবিতাগুলি আবৃত্তি করে তার জীবন শুরু করেননি। আবোল তাবোল ছাড়াও তার অন্যান্য জনপ্রিয় রচনা হল হ-য-ব-র-ল, পাগলা দাশু, খাই খাই, বহুরূপী ইত্যাদি।

সুকুমার রায়ের বংশ পরিচয়

সুকুমার রায় হলেন উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী এবং বিধুমুখী দেবীর পুত্র। সুকুমার রায়ের সুপ্রভা দেবীর সাথে বিবাহ হয়। তাদের পুত্র হলেন বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা সত্যজিৎ রায়। সত্যজিৎ রায় ও বিজয়া রায় এর পুত্র সন্দীপ রায় হলেন সুকুমার রায়ের নাতি। সন্দীপ রায় ও ললিতা রায় এর পুত্র সৌরদীপ রায় হলেন সুকুমার রায়ের প্রপৌত্র।

সুকুমার রায়ের অজানা কিছু তথ্য

  • সুকুমার রায়ের পিতা উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একজন কাছের বন্ধু।
  • প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা, চিত্রনাট্যকার এবং শিল্পী সত্যজিৎ রায়ের পিতা হলেন সুকুমার রায়।
  • সুকুমার রায় ছিলেন সংস্কারবাদী দল ব্রাহ্ম সমাজের তরুন নেতা।
  • তাঁর পিতা উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী ছিলেন সন্দেশ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম সম্পাদক।
  • সুকুমার রায় ছিলেন ‘Monday Club’-এর আহ্বায়ক।

সুকুমার রায়ের মৃত্যু

১৯২৩ সালের ১০ সেপ্টেম্বর কলকাতায় গারপার বাসভবনে সুকুমার রায় মারা যান। তাঁর কারণ হিসেবে বলা হয়, মারাত্মক সংক্রামক জ্বর, লেইশম্যানিয়াসিস রোগ, যার সেই সময়ে কোনো প্রতিকার ছিলনা। তিনি যখন মারা যান তখন সত্যজিৎ এর বয়স ছিল কেবল দুই বছর। পরে সত্যজিৎ রায় নিজের মৃত্যুর ৫ বছর আগে ১৯৮৭ সালে সুকুমার রায়ের উপর একটি প্রামাণ্যচিত্রের শুটিং করে গেছেন।

Share This:
  • 2
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

close